ব্রেকিং নিউজঃ

কলমাকান্দায় পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ওয়্যারিং ইন্সপেক্টরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

আপডেটঃ ৭:০৮ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ১৬, ২০২৩

 

মোনায়েম খান, নেত্রকোনা :  জেলার কলমাকান্দা উপজেলা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎসহ দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে গত ১১ আগষ্ট কলমাকান্দা সদরের মিলন সরকার নামে একজন গ্রাহক বিষমপুরের দিলুয়ারসহ নয় জনের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ কলমাকান্দা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার বরাবরে জমা দিয়েছেন। রোববার পর্যন্ত সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে কোন ধরনের ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন অভিযোগ কারীরা। তবে ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী রাশেদুজ্জামানের দাবি এ বিষয়টি হেড কোয়াটারে তদন্তাধীন রয়েছে। লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলাম প্রতিটি ক্ষুদ্র শিল্প এবং সেঁচ লাইনের সংযোগ দেওয়ার নামে প্রতিজনের কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা করে অর্থ আদায় করছেন। আবাসিক সংযোগের জন্য তাকে দিতে হয় ৫০০ টাকা। এ ছাড়া ও তিনি বিভিন্ন এলাকায় গড়ে তুলেছেন দালাল চক্র। তাদের মাধ্যমে তিনি লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এই অসৎ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে জরুরী ব্যবস্থা নিতে গত ১১ আগষ্ট মিলন সরকার, মোঃ দিলুয়ার হোসেন, হাবিবুর রহমান, মোঃ খাইরুল হক সহ গনস্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার বরাবরে দাখিল করেছেন। কিন্তু অভিযোগের পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও এই অসৎ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অভিযোগকারীরা। এ নিয়ে অভিযোগ কারীদের মধ্যে দিলুয়ার হোসেন রোববার সন্ধ্যায় বলেন, ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলাম বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে অনৈতিকভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ নিয়ে গত পাঁচ মাস আগে তারা কলমাকান্দা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার বরাবরে একটি অভিযোগ করেছেন। তার দাবী অভিযোগের পর তদন্ত কমিটি এই অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পরও এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। বিষয়টি খুবই আপত্তিজনক। ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলাম কার নিকট থেকে টাকা নিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে দিলুয়ার বলেন, সেঁচ লাইনের জন্য কৈলাটী ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল্লাহ আল নোমানের কাছ থেকে ৭ হাজার, রাইচ মিলে বিদ্যুৎ লাইনের জন্য বিষমপুর গ্রামের আলী আকবরের নিকট থেকে ৫ হাজার, সাবমারসিবল পাম্পের বিদ্যুৎলাইনের জন্য ২ হাজার ৫শ টাকা সহ আরো অনেকের কাছ থেকেই লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ বিষয়ে জানতে আব্দুল্লাহ আল নোমানের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে কথা হয় আলী আকবরের সাথে তিনি বলেন, বেশ কয়েকদিন অফিসে গিয়ে ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর সাইফুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলেও কোন বক্তব্য দেয়নি। পরে দিলুয়ারের মাধ্যমে তার সামনে সাইফুল ইসলামকে ৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়। পরে সাইফুল ইসলাম তার কাজ করে দেন। টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম বলেন, দিলুয়ার একজন টাউট, তারা কয়েকজন আমাদের নাম করে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছেন। এখন আবার তারা উল্টো আমার নামে অভিযোগ দিয়েছে। কলমাকান্দা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী রাশেদুজ্জামান বলেন, সাইফুল ইসলামের অভিযোগটি বর্তমানে হেড কোয়াটার থেকে তদন্ত করা হচ্ছে। প্রমাণিত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।