ব্রেকিং নিউজঃ

ইজতেমায় অস্থায়ী দোকান বসানোকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের হাতাহাতি

 

 গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গীতে ইজতেমা উপলক্ষে অস্থায়ী দোকান বসানোকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। রোববার (১৪ জানুয়ারী) দুপুরে গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন টঙ্গী বাজার এলাকায় আশরাফ সেতু শপিং কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। পরে, গাজীপুর মেট্রোপলিটনের টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
জানা যায়, গাজীপুরের টঙ্গী বাজার এলাকায় আশরাফ সেতু ক্ষুদ্র সমবায় সমিতির প্রায় ৫শ দোকানীরা ব্যবসা করে আসছে। হঠাৎ ইজতেমাকে কেন্দ্র করে মাকের্টের সামনে অস্থায়ী দোকান বসানোর কথা বলেন স্থানীয় নেতাকর্মীদের নিটক বরাদ্দ দিয়েছে মার্কেট মালিক সমিতি। এনিয়ে রবিবার সকাল থেকে দোকানঘর বন্ধ করে মাকের্টের মূল ফটকের সামনে আন্দোলন করলে স্থানীয় কিছু সংখ্যাক লোক এসে বাধা দিলে দু‘গ্রুপের মধ্যে সংর্ঘষ হয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রে আসে।
আশরাফ সেতু শপিং কমপ্লেক্স ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল ইসলাম শিশির বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমরা ব্যবসা করে আসছি। ইজতেমা উপলক্ষে অস্থায়ী দোকান বসলে আমাদের জন্য সমস্যা হয়। বছরে একটি মাত্র ইজতেমায় ব্যবসা করবো তাতেই মালিক পক্ষের বিভিন্ন তালবাহানা। লাখ লাখ টাকা দিয়ে দোকনঘর নিয়েছি, মাকের্টের সামনের অস্থায়ী দোকানঘর দিলে মাকের্টের ভিতরে কেউ প্রবেশ করবে না। এতে, আমাদের প্রায় ৫শ দোকানীদের ক্ষতি হয়ে যাবে।
আশরাফ সেতু শপিং কমপ্লেক্স ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির কার্যকরী সদস্য মশিউর রহমান বলেন, আমরা যারা স্থায়ী দোকান নিয়ে ব্যবসা করছি আমাদের ব্যবসায়িক ক্ষতি হবে। মালিক সমিতি কিছু টাকার বিনিময়ে আমাদের ক্ষতি করে মার্কেটের সামনে অস্থায়ী দোকান বসানোর চেষ্টা করছে। পরে, আমরা মালিকপক্ষের সাথে আলোচনা করার পর তারা জানায় কোনো অস্থায়ী দোকান বসতে দিবে না। তবুও বাহিরের কিছু লোকজন এসে আমাদের মার্কেটের সামনে দোকান বসাতে চাচ্ছে। আমরা চাই এ সমস্যার দ্রুত সমাধান করা হোক। নয়তো আমরা কঠিন আন্দোলনের ঘোষণা দিবো।
মার্কেটের সামনে অস্থায়ী দোকানের জন্য মালিক পক্ষ থেকে ভাড়া নেয়া জিহাদুল রহমান সাব্বির বলেন, আমি মালিকপক্ষ থেকে লিখিত ভাড়া নিয়েছি। ভাড়াকৃত জায়গায় দোকান বসাতে চাচ্ছি। কিন্তু দোকান ব্যবসায়ী সমিতি দিতে রাজি হচ্ছে না। যদি দোকান বসাতে না পারি তাহলে আমার কাছ থেকে অস্থায়ী দোকান ভাড়া বাবদ নেয়া আড়াই লাখ টাকা বুঝিয়ে দিয়ে দেক।
মার্কেট মালিক সমিতির সভাপতি বাছেদ খান বলেন, প্রতিবছরই মার্কেটের সামনের অংশটুকু ইজতেমায় ভাড়া দিয়ে আসছি। কিছু অস্থায়ী দোকান বসলে ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের উপকার হয়।
ব্যবসায়ীদের আন্দোলনের খবর পেয়ে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন সরকার ঘটনাস্থলে গেলে ব্যবাসায়ী, মালিক সমিতি ও ইজারাদের সাথে মির্টিং করে অস্থায়ী দোকানঘর বরাদ্দ বন্ধ করে দেন। পরে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দোকানীরা চলে যায়।
এবিষয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটনের অপরাধ (দক্ষিণ) বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইব্রাহিম খান বলেন, মাকের্টের দোকানীদের সমস্যার খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*